OrdinaryITPostAd

আজারবাইজান বেতন কত? - কাজের ভিসা ২০২৩ [সর্বশেষ আপডেট]

পূর্ব ইউরোপের একটি প্রজাতন্ত্রী দেশ হচ্ছে আজারবাইজান। প্রতি বছর কাজের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দেশ থেকে কর্মী আজারবাইজান গিয়ে থাকে। অনেকে আবার আজারবাইজান কাজের ভিসা সম্পর্কে জানতে চায়। আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করব আজারবাইজান কাজের ভিসা ২০২৩ নিয়ে। কাজেই আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। 

এছাড়াও আরো আলোচনা করব - আজারবাইজান বেতন কত, আজারবাইজান টাকার মান কত, আজারবাইজান টুরিস্ট ভিসা। 

আর্টিকেল সূচিপত্র - আজারবাইজান বেতন কত?

১. আজারবাইজান কাজের ভিসা  ২০২৩

একজন বিদেশি কর্মী হিসেবে আজারবাইজানে যদি কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই কাজের ভিসা পেতে হবে। বিভিন্ন ধরণের কাজের ভিসা আজারবাইজানে অফার করা হয়ে থাকে। আজারবাইজানে কাজের ভিসা পেতে হলে আপনাকে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে যেমন:
  1. প্রথমে আপনাকে আজারবাইজানের নিয়োগকর্তার কাছে থেকে চাকরির অফার পেতে হবে। 
  2. ওয়ার্ক পারমিটের জন্য আপনার পক্ষে আপনার নিয়োগকর্তাকে আবেদন করতে হবে। 
  3. আপনার একটি বৈধ পাসপোর্ট তৈরি করতে হবে এবং পাসপোর্টের সাথে অন্যান্য সকল নথি যেমন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট এবং মেডিকেল সার্টিফিকেটও সংগ্রহ করতে হবে। 
  4. আজারবাইজান কর্তৃপক্ষ দ্বারা আপনার পেশাদার অভিজ্ঞতা ও শিক্ষাগত যোগ্যতা মূল্যায়ন ও স্বীকৃত হতে হবে। 
  5. একটি আবাসিক পারমিট পেতে হবে আজারবাইজানে পৌঁছানোর পর।
সুতরাং উপরোক্ত প্রয়োজনীয়তা পূরণ করা সাপেক্ষে আপনি আজারবাইজানে কাজের ভিসা পেতে পারবেন এবং আইন অনুযায়ী কাজ করতে পারবেন। 

২০২৩ সালে আজারবাইজানে অনেকগুলো কাজের কাজের ভিসা দেওয়া হবে। যেমন-
  1. সেলসম্যান 
  2. ফুড প্যাকেজিং
  3. ড্রাইভিং
  4. ফ্যাক্টরি
  5. রেস্টুরেন্টে 
  6. হোটেল 
  7. কনস্ট্রাকশন 
আজারবাইজানের কাজের ভিসা সরাসরি ইন্ডিয়ান আজারবাইজান দূতাবাস থেকে অথবা ভারতের বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। আর যদি বাংলাদেশ থেকে কাজের ভিসা নিয়ে আজারবাইজান যেতে চান তাহলে প্রথমে আপনাকে দুবাই যেতে হবে তারপর দুবাই থেকে আজারবাইজান যেতে হবে। 

প্রতি বছর বোয়েসেল বা বিএমআইটিও কাজের ভিসার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে থাকে। এছাড়াও বাংলাদেশে অনেক বেসরকারি সরকারি এজেন্সি রয়েছে তাদের সাথে যোগাযোগ করে আপনি সহজেই কাজের ভিসা নিয়ে আজারবাইজান আসতে পারবেন। 

২. আজারবাইজান কাজের ভিসা আবেদন 

কিভাবে আজারবাইজান কাজের ভিসার আবেদন করতে হয় তা নিচে ধাপে ধাপে দেওয়া হলো:
  • প্রথমে আপনি কোন ধরণের কাজের উপর নির্ভর করে আজারবাইজান যাবেন তা নির্ধারণ করুন।
  • এবার নিয়োগকর্তার কাছে থেকে ওয়ার্ক পারমিট, আমন্ত্রণ পএ সহ সকল ডকুমেন্টস সংগ্রহ করুন।
  • তারপর অনলাইনে ভিসা আবেদন ফরম পূরণ করে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস আপলোড করুন।
  • অনলাইনের মাধ্যমে ভিসা আবেদন ফি পরিশোধ করুন।
  • নিকটতম আজারবাইজান দূতাবাস বা কনস্যুলেটে বায়োমেট্রিক তথ্য জমা দিয়ে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিন।
  • তারপর ভিসার আবেদন অনুমোদন এবং প্রক্রিয়াকরণের জন্য অপেক্ষা করুন।
  • নির্দিষ্ট দিনে আজারবাইজান কনস্যুলেট বা দূতাবাসে উপস্থিত হয়ে ভিসাটি সংগ্রহ করে নিন।

৩. আজারবাইজান বেতন কত 

অনেকেই জিজ্ঞাসা করে আজারবাইজানে কাজের বেতন কত? আর্টিকেলের এই অংশে আলোচনা করব আজারবাইজানে কাজের বেতন কত।

সাধারণত একজন শ্রমিককে আজারবাইজানে মাসিক বেতন দেওয়া হয় 2950 AZN। তাছাড়া আপনি যদি ওভারটাইম করেন বা পার্টটাইম অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ করেন তাহলে মাসিক বেতন আরো বেশি পেয়ে থাকবেন। আজারবাইজানে সর্বনিম্ন বেতন দেওয়া হয় 750 AZN এবং সর্বোচ্চ বেতন দেওয়া হয় 13200 AZN। 

আজারবাইজান যাওয়ার আগে ওভারটাইমের ব্যবস্থা আছে কি না, ওভারটাইমের কাজ, থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা এবং যাতায়াত খরচ সম্পর্কে অবশ্যই জেনে নিবেন। 

৪. আজারবাইজান টাকার মান কত  

আজারবাইজানের মুদ্রার নাম হচ্ছে মানাত। আজারবাইজানের ১ মানাত বাংলাদেশের ৬৫.১০৭৮ টাকা।তবে বিভিন্ন সময় এই টাকার মান কম বেশি হয়ে থাকে।  

৫. আজারবাইজান টুরিস্ট ভিসা 

আজারবাইজানে রয়েছে প্রচুর দর্শনীয় স্থান। আপনি যদি একজন ভ্রমণপিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আজারবাইজানকে রাখতে পারেন ভ্রমণের তালিকায়।আজারবাইজান ভ্রমণে আপনি ৩০ দিন পর্যন্ত থাকতে পারবেন। আজারবাইজান টুরিস্ট ভিসা আবেদনের পূর্বে আপনাকে এটা নিশ্চিত হতে হবে যে, আপনি ভিসা পাওয়ার জন্য উপযুক্ত কি না। সাধারণত অনলাইন ও অফলাইন দুইভাবে আজারবাইজান টুরিস্ট ভিসা পেতে পারেন। 

অনলাইন :

  • অনলাইনে টুরিস্ট ভিসার আবেদন করার জন্য আজারবাইজানের প্রজাতন্ত্রের ই- ভিসা পোর্টালে যেতে হবে। 
  • আবেদনপএে প্রয়োজনীয় সকল তথ্য দিয়ে পূরণ করুন।
  • ছবিসহ প্রয়োজনীয় সকল ডকুমেন্টস সংযুক্ত করুন।
  • ভিসা ফি পরিশোধ করুন
  • এবার আবেদনপএটি জমা দিন।

৬. আজারবাইজান কাজের ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপএ 

আজারবাইজান কাজের ভিসা পাওয়ার জন্য যেসব কাগজপএের প্রয়োজন সেগুলো হলো :
  • পাসপোর্ট (৬ মাস মেয়াদের)
  • জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি 
  • ছবি (২ কপি পাসপোর্ট সাইজের) 
  • কাজের অভিজ্ঞতার প্রমাণপএ
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স 
  • আজারবাইজান কোম্পানি কর্তৃক ইনভাইটেশন লেটার 
সুতরাং উপরোক্ত ডকুমেন্টস গুলো প্রয়োজন হবে আজারবাইজান কাজের ভিসা পেতে। 

৭. আজারবাইজান টুরিস্ট ভিসা ফি  

আজারবাইজান টুরিস্ট ভিসা ফি সাধারণত ভিসার আবেদন করার সময় পরিশোধ করতে হয়।ভিসা ফি মাস্টার কার্ড, ভিসা দিয়ে পরিশোধ করতে পারবেন। অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করে টুরিস্ট ভিসা ফি নির্ধারিত হয় যেমন - পরিষেবার চার্জ, পারমিটের ধরণ এবং অন্যান্য বিষয়।স্বাভাবিক একক এন্ট্রির জন্য টুরিস্ট ভিসা ফি হচ্ছে 1932 মানাত এবং জরুরি একক এন্ট্রির জন্য ভিসা ফি 4200 মানাত। 

৮. আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর 

প্রশ্ন ১: আজারবাইজান কাজের ভিসার পাসপোর্টের মেয়াদ কতদিন হতে হবে?

উত্তর: আজারবাইজান পাসপোর্টের মেয়াদ হতে হবে ৬ মাস।

প্রশ্ন ২: আজারবাইজান কাজের ভিসার বেতন কত?

উত্তর: আজারবাইজান কাজের ভিসার মাসিক বেতন প্রায় 2,950AZN।

প্রশ্ন ৩: আজারবাইজান কাজের ভিসার মেয়াদ কি বাড়ানো যায়? 

উত্তর: অবশ্যই আজারবাইজান কাজের ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর বাড়াতে পারবেন। 

প্রশ্ন ৪:আজারবাইজান কাজের ভিসা পেতে কত দিন লাগে?

উত্তর: আজারবাইজান কাজের ভিসা পেতে ৩০ দিন সময় লাগে। 

প্রশ্ন ৫: আজারবাইজানের ১ মানাত বাংলাদেশের কত টাকা?

উত্তর: আজারবাইজানের ১ মানাত বাংলাদেশের প্রায় ৬৫.১০৭৮ টাকা। 

প্রশ্ন ৬: আজারবাইজানে টুরিস্ট ভিসা দিয়ে কতদিন থাকা যায়?

উত্তর: আজারবাইজানে টুরিস্ট ভিসা দিয়ে ৩০ দিন পর্যন্ত থাকা যায়।

৯. লেখকের মন্তব্য

আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করলাম আজারবাইজান কাজের ভিসা ২০২৩ নিয়ে।আশা করি  আর্টিকেলটি পড়ে উপকৃত হবেন। আর্টিকেল সম্পর্কে আপনার মতামত, পরামর্শ কিংবা প্রশ্ন আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন। এরকম আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্যসমৃদ্ধ আর্টিকেল পড়তে নিয়মিত ভিজিট করুন  আমাদের ওয়েবসাইট   The Du Speech । ধন্যবাদ। 

এই আর্টিকেলের-

লেখক: মোসা: কবিতা 
পড়াশোনা করছেন লালমনিরহাট নার্সিং কলেজে। তিনি পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালেখি করতে পছন্দ করেন।
জেলা: নরসিংদী 


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল রাইটিং সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা
মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন
পড়াশোনা করছেন:  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে।
জেলা: নাটোর

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

The DU Speech-এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন, প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়

comment url