The DU Speech https://www.duspeech.com/2022/11/australia-sponsor-visa.html

অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা | বিস্তারিত জানুন

আপনারা অনেকেই অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা নিয়ে জানতে চান। সেজন্য আজকে আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করব অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা নিয়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল রাইটিং সংগঠনের আজকের আলোচনা হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা নিয়ে। অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা সম্পর্কিত সকল তথ্য জানতে আর্টিকেলটি ভালোভাবে পড়ুন।

আর্টিকেল সূচিপত্র (যে অংশ পড়তে চান তার ওপর ক্লিক করুন)

  1. অস্ট্রেলিয়ার ভিসা
  2. অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা
  3. স্পন্সর ভিসায় কেন অস্ট্রেলিয়া যাবেন
  4. প্রয়োজনীয় কাগজপত্র
  5. খরচ
  6. আবেদন
  7. সুবিধা
  8. আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর
  9. লেখকের মন্তব্য

১.অস্ট্রেলিয়ার ভিসা | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

অক্টোবর মাস থেকে পৃথিবীর সব দেশের নাগরিকদের জন্য অস্ট্রেলিয়ার ভিসার শর্তগুলো শিথিল করা হচ্ছে।এর মধ্যে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর  ভিসা ও আছে। এছাড়া রাজ্যগুলোতে বিদেশি শ্রমিক ঘাটতি দেখা দেওয়ায় ফেডারেল সরকার রাজ্যগুলোর জন্য প্রায় ৫০ হাজার অতিরিক্ত ভিসা বরাদ্দ করেছে। ভয়াবহ শ্রমিক সংকট হলেও, অস্ট্রেলিয়া এর আগে শুধু কয়েকটি নির্দিষ্ট দেশের নাগরিকদের সহজ শর্তে ভিসা দিয়েছিল। অধিকাংশ দেশের ক্ষেত্রে বিশেষ করে উন্নয়নশীল দেশের নাগরিকদের ভিসার নিয়ম গুলো ছিল খুবই কঠোর।এছাড়াও গত আড়াই বছর মহামারির কারণে অস্ট্রেলিয়ার বাইরে থেকে শ্রমিক ভিসা আবেদনের বিষয়ে কড়া বিধিনিষেধ ছিল। বিদেশি শ্রমিক ঘাটতির কারণে দেশটির অর্থনীতিতে ধস নামায় সরকার বর্তমানে সব দেশের নাগরিকদের জন্য ভিসা শর্তগুলো সহজ করার উদ্যোগ নিয়েছে। এতে বাংলাদেশি কর্মীরাও বিশেষ সুবিধা পাবে।

২.অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা এ বিভিন্ন স্থানে দেশ থেকে 1000 জন শ্রমিক অস্ট্রেলিয়ায় যেতে পারবে ।নতুন করে অস্ট্রেলিয়ান সরকার এই নিয়োগ টি প্রকাশ করেছে। এই নিয়োগ প্রাপ্ত শ্রমিকরা অস্ট্রেলিয়া গিয়ে যে কাজগুলো করবে সেগুলো হলো গবাদি পশুপালন ,ক্ষেত খামারের কাজ, বিভিন্ন রকম বাগান সহ এই সমস্ত কাজে নিয়োজিত হতে হবে।

তবে অস্ট্রেলিয়া সরকার বিশেষভাবে জানিয়েছে অবশ্যই কাজের প্রতি অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। অভিজ্ঞতা ছাড়া এ ভিসার জন্য কোন ভাবেই আবেদন করতে পারবে না। কেননা অভিজ্ঞ লোক ছাড়া অস্ট্রেলিয়াতে কাজগুলো করতে পারবে না। তাই অবশ্যই অভিজ্ঞতা প্রয়োজন এবং এর সার্টিফিকেট অনুযায়ী ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে।

৩.স্পন্সর ভিসায় কেন অস্ট্রেলিয়া যাবেন | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

অস্ট্রেলিয়ার গুলো হয়ে থাকে আধুনিক পর্যায়ে। আধুনিক সিস্টেমে কৃষিকাজ করায় কৃষকদের কোনরকম ঝামেলা বা কষ্ট হয় না। যার কারণে প্রত্যেকে অস্ট্রেলিয়ায়  কাজ করার ফলে অনেক আরামে কাজ করতে পারে। এছাড়াও কাজের বেতন সঠিক সময়ে পরিশোধ হয়ে থাকে। এবং বেতনের পরিমাণটাও অন্যান্য কাজের তুলনায় অনেকটাই বেশি। যে কারণে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা এর জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ গিয়ে থাকে অস্ট্রেলিয়াতে। 

আপনারাও অস্ট্রেলিয়া গিয়ে অনেক আরামদায়ক ভাবে কাজ করতে পারবেন। এবং তার বিনিময়ে অনেক ভালো পরিমাণ বেতন পাবেন। তাই আপনাদের যদি কাজের প্রতি দক্ষতা থাকে। তবে আপনি তার সার্টিফিকেট অনুযায়ী অস্ট্রেলিয়ায় কাজের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

৪.প্রয়োজনীয় কাগজপত্র | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা পেতে অবশ্যই কিছু রিকোয়ারমেন্ট আছে। যেগুলো অনুযায়ী আপনি ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। যেই কাগজপত্র গুলো প্রয়োজন ভিসার ক্ষেত্রে। সে কাগজপত্র গুলো নিচে দেয়া হলো। এবং একটি কথা মাথায় রাখবেন। অস্ট্রেলিয়ার সরকার বিশেষভাবে জানিয়েছে এই ভিসার জন্য আবেদন করতে অবশ্যই কাজের দক্ষতা থাকতে হবে। তা অবশ্যই অভিজ্ঞরা এই ভিসার জন্য আবেদন করবেন এই সমস্ত কাগজ পত্র অনুযায়ী।

এনআইডি কার্ডের ফটোকপি, কৃষি ক্ষেত্রে কাজের প্রমাণ, ছয় মাস মেয়াদী পাসপোর্ট, চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাক্ষরিত সনদ, ইংলিশ দক্ষতা বিষয়ে সার্টিফিকেট, এবং এডুকেশন সার্টিফিকেট এর প্রয়োজন হবে অস্ট্রেলিয়া ভিসার জন্য আবেদন করতে। তাই যারা এই অস্ট্রেলিয়ান ভিসা জন্য আবেদন করতে চান। তারা এই সমস্ত কাগজপত্র গুলো সংগ্রহ করে রাখুন।

৫.খরচ | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা এর দাম বিভিন্ন এজেন্সির ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে তবে এশিয়া দেশের মধ্যে যদি আপনি অন্য কোন এম্বাসি মাধ্যমে ভিসা নিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার ৪ থেকে ১০ লাখ টাকার মতো খরচ পড়তে পারে। তবে এটি সম্পুর্ন নির্ধারিত হয়ে থাকে বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে। তাই অবশ্য যে এজেন্সির এর মাধ্যমে যাবেন সেই সম্পর্কে ভালোমতো যাচাই বাছাই করবেন এবং ভিসার দাম অন্যান্য এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করে নির্ধারণ করে নিবেন যে দাম কত হতে পারে এবং তারা কত নিচ্ছে।

৬.আবেদন | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা এ গভর্মেন্ট জব ওয়েবসাইট গুলোতে বিভিন্ন বিষয়ে নতুন আপডেট নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করছে। অস্ট্রেলিয়ান গভার্নমেন্ট এর ওয়েবসাইটে এ ভিসা আবেদনের সকল কিছু পেয়ে যাবেন। ওয়েবসাইটটি হলো https://immi.homeaffairs.gov.au/visas/working-in-australia ।এই ওয়েবসাইট থেকেও আবেদন করা যাবে। তাই এই সমস্ত ওয়েবসাইট থেকে খুব সহজেই অস্ট্রেলিয়া অন্যান্য ক্ষেত্রের কাজ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন এবং এখানেই আপনি সরাসরি আবেদন করতে পারবেন যদি আপনার ভিসা পাসপোর্ট সবকিছু তৈরি থাকে ।তাহলে এসমস্ত কোম্পানিগুলোতে গিয়ে আপনি সরাসরি যোগদান করতে পারবেন ।তাছাড়াও আপনি অনলাইনের মাধ্যমে অন্যান্য নতুন বিজ্ঞপ্তি দেখে সেখানে আপনার সিভি পাঠিয়ে নতুনভাবে আবেদন করতে পারবেন।তাছাড়াও আপনি অস্ট্রেলিয়াতে বিভিন্ন গণমাধ্যম সহ অন্যান্য বিষয়গুলোতে নজর রাখলে খুব সহজে অস্ট্রেলিয়ায়  আপনি কাজ করতে পারবেন। তাই অস্ট্রেলিয়াতে যারা অবস্থান করছে তারা খুব সহজেই  জব পেয়ে যায়। অন্যান্য ক্ষেত্রে যতটা কঠিন হলেও কৃষিক্ষেত্রে জব পাওয়া টা খুব একটা কঠিন ব্যাপার নয় ।তাই আপনি যদি চোখ কান খোলা রেখে জব খোজাখুজি করেন তাহলে খুব সহজেই অস্ট্রেলিয়ায়  জব পেয়ে যাবেন।

৭.সুবিধা | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা তে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি দ্বারা  কার্যক্রম সম্পাদন করা হয়ে থাকে যেমন খামারবাড়ি ক্ষেত-খামার সহ নানা রকমের কৃষি ডিজিটাল যুগে যন্ত্রপাতি ব্যবহার করছে। এক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়াতে কাজে তেমন কোনো কঠিন পরিশ্রম নেই এবং তাদের বেতন ভাতা সহ অন্যান্য বিষয়াদি অস্ট্রেলিয়া সরকার খুবই ভালো ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই চাইলে দক্ষ হয়ে অস্ট্রেলিয়া তে গিয়ে ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবে।

৮.আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা সম্পর্কে আপনাদের অনেক অনেক রকম প্রশ্ন থাকে। এই অংশে আমরা আপনাদের সাথে কিছু প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করব।
প্রশ্ন ১: বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা  চালু আছে কিনা?
উত্তর: অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা বর্তমানে চালু আছে।
প্রশ্ন ২: বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসায় প্রতিটি দেশ থেকে কত লোক নিবে?
উত্তর: স্পন্সর ভিসায় প্রতিটি দেশ থেকে ১০০০ লোক নিবে।
প্রশ্ন ৩: অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা পেতে কি কি কাগজ প্রয়োজন?
উত্তর:এনআইডি কার্ডের ফটোকপি, কাজের প্রমাণ, ছয় মাস মেয়াদী পাসপোর্ট, চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাক্ষরিত সনদ, ইংলিশ দক্ষতা বিষয়ে সার্টিফিকেট, এবং এডুকেশন সার্টিফিকেট এর প্রয়োজন হবে । 

৯.লেখকের মন্তব্য | অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, আজকে আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করেছি অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা নিয়ে। আজকের আলোচনা সম্পর্কে আপনাদের যেকোন মতামত আমাদের কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।  এছাড়াও অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা সম্পর্কিত যদি আপনাদের কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে আমাদেরকে অবশ্যই জানাতে পারেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল সংগঠন The DU Speech এর পাশেই থাকবেন। অস্ট্রেলিয়া স্পন্সর ভিসা সম্পর্কে হোক বা যেকোন বিষয়ে আমরা আপনার মতামতকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করব।


পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?