The DU Speech https://www.duspeech.com/2022/12/rusia-kajer-visa.html

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা | কাজের ভিসা ২০২৩ সম্পর্কে বিস্তারিত

পৃথিবীর অন্যতম সুন্দর দেশগুলোর মধ্যে একটি দেশ হল রাশিয়া। আমাদের দেশের অনেক মানুষ সেই দেশে কাজ করার স্বপ্ন দেখে কিন্তু  রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে কিভাবে আবেদন করবে এবং এর খরচ কত হবে এই নিয়ে তাদের কোন ধারনা নেই । তাই তাদের মনের সকল প্রশ্নের উত্তর দিয়ে এবং তাদের কাজকে আর সহজ করতেই মূলত  রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ নিবন্ধনটি লেখা। এখানে   রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসার খরচ,কিভাবে আবেদন করবে, কারা যেতে পারবে, কিভাবে চাকরি পাবে, ভিসার প্রক্রিয়া- এসব বিষয়ের উত্তর পাবেন  রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ আর্টিকেলে। তাই সাথেই থাকুন।

আর্টিকেল সূচিপত্র (যে অংশ পড়তে চান তার ওপর ক্লিক করুন)

  1. রাশিয়াতে কোন কাজের বেতন বেশি
  2. রাশিয়া ভিসার দাম কত।
  3. রাশিয়ায় থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা ।
  4. রাশিয়ায় কাজের বেতন কত।
  5. রাশিয়া ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।
  6. রাশিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়ার উপায় ।
  7. ভিসা সংক্রান্ত সাবধানতা।
  8. আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর
  9. লেখকের মন্তব্য

১.রাশিয়াতে কোন কাজের বেতন বেশি। রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে এসে সে দেশে কোন কাজের চাহিদা বেশী তা জানতে পারবেন রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩- আর্টিকেলের এই ধাপে।বর্তমানে রাশিয়াতে প্রায় সব কাজেরই বেতন বেশি তার ভেতরে ড্রাইভিং ইলেকট্রিশিয়ান, প্যাকেজিং ,নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার এ সকল কাজের বেতন রাশিয়ায় অনেক বেশি যার কারণে এই সকল প্রতিষ্ঠানে কাজের চাহিদাও অনেক। বাইরের দেশ থেকে যে সকল শ্রমিক রাশিয়ায় কাজের জন্য যায় সে সকল শ্রমিক সাধারণত খুবই কম অফিশিয়াল কাজ করে থাকে। 

তবে এই সমস্ত কাজের বেতন অনেকটাই পাবেন আপনারা।আমি যদি এ সকল কোম্পানিতে চাকরি করেন তাহলে আপনাকে অফিশিয়াল আদেশ অনুযায়ী পুরো দিনে ৮ ঘন্টা ডিউটি করতে হবে। যার বেতন আপনি ১২ থেকে ১৫ ডলারের মতন পাবেন।এছাড়া বিভিন্ন কোম্পানিতে ওভারটাইম করার সুযোগ থাকে আপনি আরো কিছু বলার উপার্জন করতে পারবেন।তাছাড়াও বর্তমানে রাশিয়ায় অনেক ফ্যাক্টরি বা কোম্পানিতে কাজের লোক নিয়োগ দিয়েছে যার কারণে সেখানে প্রচুর লোকের প্রয়োজন।

যে সকল কোম্পানিতে কাজের লোক নিয়োগ দিয়েছে তা হল চিকেন ফ্যাক্টরি অপারেটর, অটোমোবাইল, কার্পেন্টার, ফুড প্যাকেজিং অপারেটর, নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার, এগ্রিকালচার,ফ্যাক্টরি, কন্সট্রাকশন ছাড়াও আরো অনেক রকম প্রতিষ্ঠানে কাজের লোক নিয়োগ দিয়েছে, যার কারণে বাংলাদেশ থেকে অনেক লোকের প্রয়োজন।এই সকল ফ্যাক্টরিতে কাজের জন্য মিনিমাম শিক্ষাগত যোগ্যতা প্রয়োজন। শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়া এই ভিসাটি করতে পারবে না।

২.রাশিয়া ভিসার দাম কত। রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে এসে এর ভিসার দাম কত তা জানতে পারবেন এই ধাপে। সাধারণত রাশিয়ায় কাজের ভিসার দাম বর্তমানে ১৬০ ডলার। তবে শুধুমাত্র যারা সরকারিভাবে রাশিয়ায় কাজের জন্য যাবে তাদের জন্য এই 160 ডলার দিতে হবে। এবং বাংলাদেশ থেকে যদি রাশিয়ায় কেউ কোনো কোম্পানি মাধ্যমে গিয়ে থাকে। তাহলে সেই ক্ষেত্রে তাকে তিন থেকে পাঁচ লক্ষ টাকার মত খরচ করতে হবে।তবে রাশের ভিসা পাবে। এরমধ্যে বিমান ভাড়া এবং আরো আনুষঙ্গিক প্রয়োজনীয় খরচ বহন করতে হবে।

৩.রাশিয়ায় থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা । রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসায় ২০২৩ সালে গেলে সেই দেশের খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা কেমন তা জানবেন এই পর্যায়েযে কোম্পানির মাধ্যমে আপনি রাশিয়ায় যেতে চাচ্ছেন। সেখানে যাবার পূর্বেই সেই সকল কোম্পানি কাছ থেকে ভালোভাবে জেনে নিবেন। যে যে কোম্পানি আপনার থাকা খাওয়া আরো আনুষঙ্গিক খরচ বহন করবে কিনা।কেননা অনেক কোম্পানি আছে যেগুলো দুই বছরের যাতায়াত বিমান ভাড়া এবং আরো নানান খরচ দিয়ে থাকে। তাই ভালোভাবে কোম্পানির থেকে জেনে নিতে হবে আপনার সেই সকল খরচ বহন করবে কিনা। এবং সেভাবে চুক্তি করে নেবেন।

৪.রাশিয়ায় কাজের বেতন কত। রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ 

আপনি যদি রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে যান তাহলে খুবই সহজে ভালো মানের বেতন পেতে পারবেন।বর্তমানে রাশিয়াতে একজন শ্রমিকের আট ঘন্টা ডিউটি তে মাসে বেতন আসে 900 থেকে 1200 ইউ এস ডলার। পাশাপাশি ওভারটাইম সহ আনুষঙ্গিক 15 ডলার পর্যন্ত ইনকাম করা সম্ভব তবে এটি শুধুমাত্র বিদেশি শ্রমিকদের অ্যাভারেজ হিসেবে ধরা হয়েছে পাশাপাশি যদি কেউ অফিশিয়াল কাজে-কর্মে ঢুকে পড়তে পারে এবং ভালাে কোন কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে কাজ করতে পারে সে ক্ষেত্রে কিন্তু বেতন অনেকটাই বেশি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

তাছাড়াও বর্তমানে রাশিয়াতে নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ার, ইলেকট্রিশিয়ান প্যাকেজিং, ড্রাইভিং, সহ কয়েকটি ক্যাটাগরিতে সবথেকে বেশি পাওয়া যাচ্ছে সাধারণত বিদেশি শ্রমিকদের জন্য এটি তুলে ধরা হয়েছে। কারণ বিদেশি শ্রমিকরা সাধারণত অফিশিয়াল কাজ অনেকটাই কম করে থাকে তাই এই সমস্ত কাজের মধ্যে এইগুলানের একটু বেতন বেশি। আর এই সমস্ত কাজগুলাতে সাধারণত ৪ ঘন্টা দিনে ডিউটি করা হয়ে থাকে এবং পাশাপাশি ওভারটাইম যদি কেউ করতে চাই পাশাপাশি 12 থেকে 15 ঘণ্টা পর্যন্ত ওভারটাইম করতে পারবে। ওভারটাইম করলে বেতন আনুমানিক অনেকটা বেশি পাওয়া যায়

৫.রাশিয়া ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে যদি যেতে চান তাহলে আপনাকে কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হাতের সামনে রাখতে হবে। বা আপনি যখন বাইরের দেশে যাবেন ,,তখন আপনার অনেক রকম কাগজের প্রয়োজন হবে। কেননা সেই সকল কাগজের মাধ্যমে আপনার ডিটেলস এবং পরিচয় এই সকল তথ্য সেখানে জমা দিতে হয়।  এই সকল কাগজগুলো খুবই প্রয়োজনীয় সেগুলো হল:
  • এনআইডি কার্ডের ফটোকপি 
  • ছয় মাসের ভ্যালিড পাসপাের্ট 
  • কাজের অভিজ্ঞতা
  • সর্বশেষ শিক্ষাগত যোগ্যতা।
  • ছয় মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট 
  • এনআইডি কার্ডের ফটোকপি
  • কানাড়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

৬. রাশিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়ার উপায় । রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে যই আপনি চান তাহলে অবশ্যই বাংলাদেশের বােয়েসেল অথবা বিএমইটির সঙ্গে যোগাযোগ করে যেতে হবে বর্তমানে কোন কাজের নিয়োগ চলছে । এ বিষয়টি দেখে সরাসরি আপনারা  বিএমইটির সাথে যোগাযোগ করে যেতে। পারবেন বর্তমানে বাংলাদেশের সরকার অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান গুলো। তাই অবশ্যই যাওয়ার আগে আপনি রাশিয়ার বিভিন্ন গভমেন্ট জব ওয়েবসাইটগুলাতে থেকে দেখে নিতে পারেন যে কোন কাজের প্রতি বর্তমানে নিয়োগ চলছে সেই অনুযায়ী আপনারা তাদের সাথে। যোগাযোগ করবেন।

৭.ভিসা সংক্রান্ত সাবধানতা । রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ 

রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে পেয়ে রাশিয়াতে যাওয়ার জন্য অবশ্যই অনলাইন থেকে রাশিয়ান বিভিন্ন ওয়েবসাইট আছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনারা কাজের ভিসা চেক করে নিতে পারবেন কারণ অনেক ভালো লাগছে সচরাচর আপনাকে টুরিস্ট ভিসা হাতে ধরিয়ে দিয়ে ওয়ার্ক পারমিট বলে টাকা নিতে পারে। তাই অবশ্যই এটা যাচাই-বাছাই করে তারপর আপনি রাশিয়াতে যাওয়ার চিন্তাভাবনা করবেন তাছাড়া রাশিয়াতে গিয়ে আপনাকে ফিরে আসা লাগতে পারে।

৮. আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর 

প্রশ্ন ১: রাশিয়া যেতে কি সে দেশের ভাষা জানা দরকার?

উত্তর: জানা থাকলে ভালো।

প্রশ্ন ২: রাশিয়া কোম্পানি চাকরির ডিউটি কত ঘন্টা?

উত্তর: কোম্পানি চাকরির অফিসিয়াল ডিউটি ৮ ঘন্টা।

প্রশ্ন ৩: রাশিয়া যেতে কত টাকা খরচ হতে পারে?

উত্তর: রাশিয়া যাওয়ার ক্ষেত্রে ৫ থেকে ৭ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে।

প্রশ্ন ৪ : রাশিয়া কাজের ভিসার দাম কত?

উত্তর: রাশিয়ার কাজের ভিসার দাম ১৬০ ডলারের মত।

৯. লেখকের মন্তব্য

প্রিয় পাঠক, রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ নিবন্ধনটি লেখা হয়েছে তাদের জন্য যারা রাশিয়া যেতে চায় কিন্তু জানে না কিভাবে যাবে।  রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সালে পেতে হলে কি কি করতে হবে কোথায় আবেদন করতে হবে কি কি কাগজপত্র, যোগ্যতা লাগবে -এসব নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। কোন ধরনের মন্তব্য থাকলে কমেন্ট করবেন উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব। আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল সংগঠন The DU Speech এর পাশেই থাকবেন। রাশিয়া ওয়ার্ক ভিসা ২০২৩ সম্পর্কে হোক বা যেকোন বিষয়ে আমরা আপনার মতামতকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করব।

লেখক: আলামিন মজুমদার
পড়াশোনা করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা ও তথ্য প্রযুক্তি বিভাগে। তিনি পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালেখি করতে পছন্দ করেন।
জেলা: চাঁদপুর 



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল রাইটিং সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা
মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন
পড়াশোনা করছেন:  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে।
জেলা: নাটোর

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?