The DU Speech https://www.duspeech.com/2022/12/italy-tourist-visa.html

ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

পৃথিবীর অন্যতম সুন্দর দেশগুলোর মধ্যে একটি দেশ হল ইতালি। আমাদের দেশের অনেক মানুষ সেই দেশে কাজ করার স্বপ্ন দেখে কিন্তু  ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩  সালে কিভাবে আবেদন করবে এবং এর খরচ কত হবে এই নিয়ে তাদের কোন ধারনা নেই । তাই তাদের মনের সকল প্রশ্নের উত্তর দিয়ে এবং তাদের কাজকে আর সহজ করতেই মূলত ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ এই নিবন্ধনটি লেখা। এখানে ইতালির টুরিস্ট ভিসা খরচ,প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, কারা যেতে পারবে, ভিসা প্রসেসিং ও প্রক্রিয়া- এসব বিষয়ের উত্তর পাবেন ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ আর্টিকেলে। তাই সাথেই থাকুন.

আর্টিকেল সূচিপত্র (যে অংশ পড়তে চান তার ওপর ক্লিক করুন)

  1. ইতালির টুরিস্ট ভিসায় খরচ কেমন হয়
  2. ইতালির ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র
  3. টুরিস্ট ভিসা পেতে করণীয়
  4. ভিসা প্রসেসিং এর সময় ও খরচ
  5. ভিসার প্রক্রিয়া
  6. আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর
  7. লেখকের মন্তব্য

১.ইতালির টুরিস্ট ভিসায় খরচ কেমন হয়। ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

আপনারা যদি ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ সালের জন্য করতে চান, তাহলে আপনাকে কিছু জিনিষ মাথায় রাখতে হবে।এক্ষেত্রে আপনাকে ব্যাংক ব্যালেন্স দেখাতে হবে এবং কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০ লক্ষ টাকা যদি আপনার ব্যাংকের একাউন্টে থাকে তাহলে আপনারা টুরিস্ট ভিসা পেয়ে যাবেন। কেউ যদি কাজের সুবাদে সেখানে স্থায়ী হতে চান এবং সেখানে পরিবার পরিজনের সদস্য নিয়ে যেতে চান তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনাদেরকে ফ্যামিলি ভিসা করতে হবে।

এক্ষেত্রে আপনি যদি মনে করেন তাহলে খুব অল্প খরচে সরাসরি কোন ধরনের দালাল ছাড়া পাঁচ লক্ষ টাকার ভেতরে পরিবারের সদস্যদের কে নিয়ে যেতে পারবেন। সেই ক্ষেত্রে আপনি ইতালিতে অবস্থানরত কি কাজে জড়িত আছেন এবং আপনার মাসিক ইনকাম সহ একটা স্থায়ী ঠিকানা প্রদর্শন করতে হবে এবং এভাবে আপনি যাবতীয়শর্ত পূরণ করা সাপেক্ষে এই বিষয়গুলোর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

২. ইতালির ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ সালে যেতে চাইলে আপনাকে কিছু ডকুমেন্ট যোগাড় করে রাখতে হবে। সেগুলো হলো-
  • ১- “সি” (C) টাইপ ভিসা ফরম (সম্পূর্ণরুপে সম্পন্ন এবং আবেদনকারী কর্তৃক স্বাক্ষরিত) আবেদনকারী ১৮ বছরের নিচে হলে ভিসা ফরম পিতা/মাতা স্বাক্ষর করবে এবং স্বাক্ষর প্রমানসরুপ পিতা / মাতার বাংলাদেশ সরকার অনুমদিত পরিচয় পত্র সহকারে আবেদনকালিন সময়ে উপস্থিত থাকতে হবে।
  • ২- পাসপোর্ট কমপক্ষে ১৮০ দিন পর্যন্ত বৈধ এবং অন্তত উভয় দিকে ফাঁকা ১টি খালি পৃষ্ঠা থাকতে হবে সাথে (সকল ভিসা পেজ এর কপি- যদি এর আগে অন্য কোন দেশের ভিসায় ভ্রমন করে থাকেন)।
  • ৩- সম্প্রতিক সময়ে তোলা পাসপোর্ট সাইজ ও ধরনের দুই কপি রঙ্গিল ছবি। (৬ মাসের মধ্যে তোলা ছবি হতে হবে এবং ব্যাকগ্রাউন্ড অবশ্যই সাদা হতে হবে)
  • ৪- চাকুরিজীবিদের জন্যঃ ক) নিয়োগপত্র, খ) বেতন বিবৃতি / গত ছয় মাসের বেতন স্লিপ (আসল + ফটোকপি) ব্যবসায়িক/ নিয়োগকর্তাদের জন্যঃক) আবেদনকারীর কোম্পানি রেজিস্ট্রেশন ডকুমেন্ট, খ) ইনকরপোরেশন সার্টিফিকেট, গ) মেমোরেনডাম অব আর্টিকেল এন্ড এসোসিয়েশন (শেয়ারহোল্ডারদের নামের তালিকা পাতা সাথে প্রথম দুই পাতা কপি এবং শেষ পাতার কপি) ঘ) স্থানীয় চেম্বার অব কমার্স সঙ্গে বৈধ সদস্যপদ সার্টিফিকেট, ঙ) ট্যাক্স/টিন নম্বর, চ) ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন নম্বর, ছ) ট্রেড লাইসেন্স (মুল + ফটোকপি)।
  • ৫- ব্যাংক স্টেটমেন্ত- গত ছয় মাসের সম্প্রতি তুলে আনতে হবে (ব্যক্তিগত ও কোম্পানির, আসল ও ফটোকপি),ক্রেডিট কার্ড স্টেটমেন্ট (যদি থাকে)।
  • ৬- সঙ্গী অথবা পরিবারের সদস্যদের জন্য অতিরিক্ত ডকুমেন্টঃ
ক)স্বামী বা স্ত্রীর জন্য (বিয়ের সার্টিফিকেট) যেমন স্বামী তার স্ত্রী কে টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করলে এই সার্টিফিকেট লাগবে।
খ)শিশুদের ক্ষেত্রে (জন্মের সার্টিফিকেট)
গ)শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে (আইডি কার্ড ফটোকপি সহ স্কুল থেকে আনুমোদন চিঠি)।
ঘ)পরিবারের কারো ক্ষেত্রে ফ্যামিলি সার্টিফিকেট (সার্টিফিকেটটি পরিবারের প্রধান এর নামে ইস্যু হবে এবং পরিবারের প্রধানসহ সকল সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে)।
ঙ)শিশুদের মধ্যে কেউ যদি বাবা অথবা মা দুই জনের একজন ছাড়া শুধু বাবার সাথে অথবা মার সাথে ভ্রমন করে,সেই ক্ষেত্রে পিতা/মাতার অনাপত্তিপত্র প্রদান করতে হবে।
  • ৭- অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ঃ টুরিস্ট ভিসার জন্য “লেত্তেরা ডি ইনভিতো” (lettera di invito) invitation letter তথা আমন্ত্রনপত্র অনেক বড় ভুমিকা পালন করে, যেমন আপনি আপনার ভাই এর জন্য এই আমন্ত্রনপত্র পাঠাতে পারেন, যা আপনার ভাইকে এই ভিসা পেতে অনেক বেশি কার্যকারী ভুমিকা পালন করে।তবে সেই সাথে সাথে আপনার ইতালিয়ান ব্যাংক একাউন্ত থেকে ৬ মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট দেখাতে হবে এবং সে আপনার কাছে আসার পর তার ভ্রমন কালিন থাকা খাওয়ার খরচ বাবদ ইত্যাদি বিষয় আপনি বহন করবেন যদি সে ব্যর্থ হয়। সেই মর্মে আপনার ব্যাংকে সাড়ে তিন হাজার ইউরো সমপরিমান টাকা জমা রাখতে হবে।
  • ৮- ব্যাংক গ্যারান্টির সাথে সাথে তার স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারনে কমপক্ষে ৩০০০০ ইউরোর বিদেশে অবস্থানকালীন সময়ের জন্য মেদিকেল ইনস্যুরেন্স কভারেজ কাগজপত্র দেখাতে হবে, এর মানে আপনাকে দুই ধরনের বিমা করতে হবে 
প্রথমটি হচ্ছে ব্যাংক গ্যারান্টি সংক্রান্ত বিমা, যা ইতালিয়ান দূতাবাসকে নিশ্চিত করছে যে, তার বিদেশ ভ্রমন কালিন থাকা খাওয়া সংক্রান্ত কোন সমস্যা হলে ব্যাংক এই বিষয়ে সাহায্য করবে এবং 
দ্বিতীয়টি মেডিকেল ইনস্যুরেন্স, যা উনার বিদেশে ভ্রমণ কালিন শারীরিক কোন সমস্যায় পড়লে ডাক্তার খরচ সহ মেডিসিন খরচ বহন করবে।
  • ৯- ইতালি দূতাবাস প্রয়োজনে আরও ডকুমেন্টশনের জন্য আনুরোধ করার অধিকার সংরক্ষণ করে।
  • ১০- ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কমপক্ষে ৩০ ক্যালেন্ডার দিন প্রয়োজন হতে পারে। তবে বর্তমানে এর চাইতেও বেশি সময় নিয়ে থাকে দূতাবাস।

৩.টুরিস্ট ভিসা পেতে করণীয়।ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

আপনি যদি ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩  সালে পেতে চান তাহলে নিচের বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে।উন্নত দেশগুলোতে ভিসা পাওয়ার প্রধান শর্ত আপনাকে তাদের নিকট ডকুমেন্টসের মাধ্যমে প্রমাণ করতে হবে যে, আপনি বাংলাদেশে অর্থনৈতিকভাবে অনেক ভালো আছেন আর আপনি একজন নিয়মিত ট্যুরিস্ট এবং ট্যুর শেষে অবশ্যই যথা সময়ে দেশে ফিরবেন। এই প্রমাণ তারা ঠিকমত না পেলে কোনোদিনও আপনি ভিসা পাবেন না।কিভাবে প্রমাণ করা যেতে পারে আপনি দেশে ফিরে আসবেন এবং এই প্রমাণের জন্য এ্যম্বাসি একজন ট্যুরিস্টের কোন কোন দিক খুব গুরুত্ব দেয় তার কিছু বেসিক দিক নিম্নরুপঃ

  1. আপনাকে ভালো বেতনের চাকুরীজীবী অথবা ভাল আয়ের ব্যবসায়ী হতে হবে।
  2.  চাকুরীজীবীর ক্ষেত্রে অফিস থেকে অফিসের প্যাডে NOC এবং Salary Certificate জমা দিতে হবে।
  3. ব্যবসায়ীর ক্ষেত্রে আপডেট ট্রেড লাইসেন্সের কপি এবং মাসিক আয় দেখাতে হবে।
  4.  চাকুরীজীবীর ব্যাংক Salary Account থাকতে হবে এবং ব্যবসায়ীর ক্ষেত্রে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের  নামে ব্যাংক একাউন্ট থাকতে হবে।
  5. আপনার মাসিক আয়ের সাথে ব্যয় এবং ব্যাংকে অবশিষ্ট সেভিংসের একটা মিল থাকতে হবে।
  6.  আলাদা একাধিক ব্যাংক সেভিংস একাউন্ট দেখানো যেতে পারে। ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর একটা ধারাবাহিকতা থাকতে হবে দুই দিনের মধ্যে লাখ লাখ টাকা জমা দিলে হবেনা।
  7.  এতে তারা একাউন্ট সাজানো মনে করেন এবং ভাবেন আপনি যে কারো কাছে টাকা ধার করে ভিসার জন্য জমা দিয়েছেন।
  8. TIN সার্টিফিকেট থাকতে হবে।
  9. দীর্ঘদিনের FDR অথবা সঞ্চয়পত্র থাকতে হবে (ভিসার জন্য নতুন করলে হবেনা)।
  10. যেকোন সম্পদ যেমন নিজের নামে জমি বা ফ্লাটের দলিল অধিক গ্রহণযোগ্য।
  11. বছরে এক অথবা দুইবার বিদেশ ভ্রমণ থাকা ভাল  ভিসার জন্য ১০ দিনের মধ্যে তিনটা দেশ ঘুরলে হবে না তাহলে এটি সাজানো মনে হবে।
  12. বিবাহিতদের জন্য ভিসা পাওয়া অগ্রধিকার, তবে সেক্ষেত্রে স্বামী স্ত্রী উভয়কেই একসাথে একই সময়ে পূর্বে বিদেশ ভ্রমণের প্রমাণ থাকতে হবে।
  13. শুধুমাত্র ঘুরার উদ্দেশ্য নিয়ে নয় বরং বিভিন্ন ওকেশনের উদ্দেশ্য হাইলাইট করা ভিসার জন্য ভাল।
  14. ইনভাইটেশন অথবা হোটেল বুকিং থাকতে হবে আবার অনেক ক্ষেত্রে ইনভাইটেশন জরুরী ( ইনভাইটেশন লেটার নিয়ম অনুযায়ী লিখতে হবে।
  15.  কিছু কিছু এ্যাম্বাসি ভিসার জন্য ইন্টার্ভিউ নিয়ে থাকেন। সেক্ষেত্রে অবশ্যই স্মার্টের সাথে সকল প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। তবে ওভার স্মার্ট হওয়া ভাল নয়। তাদের প্রথম প্রশ্নই থাকবে আপনি কেন যেতে চান। এই ব্যাপারে সঠিক এবং গুরুত্বপূর্ণ উত্তর দিতে হবে। 
  16. শুধু বেড়াতে বা ঘুরতে যেতে চান তা না হয়ে কোন কারণ তুলে ধরতে পারেন।

৪.ভিসা প্রসেসিং এর সময় ও খরচ | ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ সালের জন্য যারা আবেদন করতে চান তাদের ভিসা প্রসেসিং এর সময় এবং খরচ সম্পর্কে জানাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই অংশে ভিসা প্রসেসিংএ সময় এবং খরচ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। কেউ যদি আগে শেনজেন ভিসা পেয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই এর ফটোকপি জমা দিতে হবে। 

ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩-সালের জন্য আবেদনপত্রে উল্লেখ করা সময় থেকে পাসপোর্টের মেয়াদ অন্তত ১৮০ দিন বেশি থাকা চাই। পাসপোর্টে অন্তত দুটি পেজ ফাঁকা থাকতে হবে। ভিসা ফি ৭৪৬০ টাকা। ৬ থেকে ১২ বছরের শিশুদের ক্ষেত্রে ভিসা ফি ৫২১০ টাকা। সর্বোপরি আবেদনপত্র সঠিক ও যথাযথভাবে পূরণ করতে হবে। তাহলেই ভিসার আবেদন বাতিল হওয়ার আশঙ্কা থাকে না।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন মুড সুইং এর আসল কারণ

৫.ভিসার প্রক্রিয়া | ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ আর্টিকেলের এই অংশে আলোচনা করা হয়েছে ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ এর ভিসা প্রক্রিয়া নিয়ে।যেকোনও পাসপোর্টধারী ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ এর জন্য আবেদন করতে পারে। ভিসা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে খুব বেশি সময় লাগে না। ঢাকাসহ সারাদেশে অনেক প্রতিষ্ঠান আছে, যারা ইতালির ভ্রমণ ভিসা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে থাকে। এছাড়া কেউ চাইলে অনলাইনে নিজেই ভিসার আবেদন করতে পারেন https://www.schengenvisainfo.com/download-schengen- visa-application-form/italy/ এই লিংকের মাধ্যমে।

৯. আর্টিকেল সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর 

প্রশ্ন ১:ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ ভিসা আবেদনের জন্য ট্রেড লাইসেন্স লাগবে কিনা?

উত্তর:ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ আবেদনের জন্য ট্রেড লাইসেন্স লাগবে ।

প্রশ্ন ২: ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ ফি কত?

উত্তর: ইতালি টুরিস্ট ভিসা ফি ৭৪৬০ টাকা।

প্রশ্ন ৩:ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হতে কতদিন সময় লাগবে? উ

ত্তর:ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হতে ৫-১০ দিন সময় লাগবে

প্রশ্ন ৪: ৬ থেকে ১২ বছরের শিশুদের জন্য ভিসা ফি কত?

উত্তর:৬ থেকে ১২ বছরের শিশুদের ক্ষেত্রে ভিসা ফি ৫২১০ টাকা

১০. লেখকের মন্তব্য

প্রিয় পাঠক, আজকে আমরা আপনাদের সাথে ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। একটি বিষয় মাথায় রাখবেন যে ,ইতালি কাজের ভিসা নিয়ে যাওয়ার জন্য আপনাকে সেই  ভাষায় কথা বলা শিখতে হবে বিষয়টি বাধ্যতামূলক নয়। এটা নির্ভর করবে আপনার কোম্পানির ওপরে।  তারপর আপনাকে বৈধভাবে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। তাহলে আপনি বাংলাদেশ থেকে ইতালি যেতে পারবেন। ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ সম্পর্কে অথবা যে কোন বিষয়ে আপনাদের কোন অভিযোগ বা মতামত নিজের কমেন্ট বক্সে লিখে জানাবেন। আমরা উপ্পত দেয়ার চেষ্টা করব। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল সংগঠন The DU Speech এর সাথেই থাকবেন। এবং ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ সম্পর্কে হোক বা অন্য বিষয়ে আমরা আপনার মতামতকে গুরুত্বের সাথে দেখবো। ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য।


লেখক: আলামিন মজুমদার
পড়াশোনা করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা ও তথ্য প্রযুক্তি বিভাগে। তিনি পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালেখি করতে পছন্দ করেন।
জেলা: চাঁদপুর 



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল রাইটিং সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা
মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন
পড়াশোনা করছেন:  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে।
জেলা: নাটোর

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?