The DU Speech https://www.duspeech.com/2022/12/singapore-to-europe-visa.html

সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় | ইউরোপ যাওয়ার উপায় সম্পর্কে জানুন

আসসালামু আলাইকুম সবাইকে। সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় সম্পর্কে আপনারা অনেকেই জানতে চান। তাই আজকে আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করব সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় নিয়ে। সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় নিয়ে খুঁটিনাটি সকল তথ্য জানতে আর্টিকেলটি ভালোভাবে পড়বেন। আশা করছি আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারবেন।  

আর্টিকেল সূচিপত্র (যে অংশ পড়তে চান তার ওপর ক্লিক করুন)

  1. ইউরোপ সম্পর্কে ধারণা
  2. ইউরোপের ভিসা
  3. ইউরোপ যাওয়ার উপায়
  4. সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার ভিসা
  5. ইউরোপে কাজের ভিসা
  6. ভিসা পাওয়ার উপায়
  7. প্রয়োজনীয় কাগজপত্র
  8. নাগরিকত্ব প্রাপ্তি সুবিধা
  9. লেখকের মন্তব্য

১.ইউরোপ সম্পর্কে ধারণা | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

ইউরোপ একটি মহাদেশ। যা বৃহত্তর ইউরেশিয়া মহাদেশীয় ভূখণ্ডের পশ্চিমের উপদ্বীপটি নিয়ে গঠিত। সাধারণভাবে ইউরাল ও ককেসাস পর্বতমালা, ইউরাল নদী, কাস্পিয়ান এবং কৃষ্ণ সাগর-এর জলবিভাজিকা এবং কৃষ্ণ ও এজিয়ান সাগর সংযোগকারী জলপথ ইউরোপকে এশিয়া মহাদেশ থেকে পৃথক করেছে।

ইউরোপের উত্তরে উত্তর মহাসাগর, পশ্চিমে আটলান্টিক মহাসাগর ,দক্ষিণে ভূমধ্যসাগর এবং দক্ষিণ-পূর্বে কৃষ্ণ সাগর ও সংযুক্ত জলপথ রয়েছে। যদিও ইউরোপের সীমানার ধারণা ধ্রুপদী সভ্যতায় পাওয়া যায়, তা বিধিবহির্ভূত; যেহেতু প্রাথমিকভাবে ভূ-প্রাকৃতিক শব্দ "মহাদেশ"-এ সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক উপাদান অন্তর্ভুক্ত।

২.ইউরোপের ভিসা | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

ইউরোপ হাজার বছরের ইতিহাস-ঐতিহ্যের এক সমৃদ্ধ মহাদেশ। ইউরোপ যে শুধু ইতিহাসে সমৃদ্ধ তা নয়। অর্থনৈতিক উন্নতিও সাধন করেছে মহাদেশ টি। কৃষি বিপ্লব, শিল্প বিপ্লব কিংবা আধুনিক প্রযুক্তি- অধিকাংশই ইউরোপের অবদান। 

উন্নত জীবনের জন্য সবাই ইউরোপে পাড়ি জমাতে চায়। পরিকল্পনা করলে খুব সহজেই যে যার অবস্থান থেকে ইউরোপে যেতে পারেন এবং নিয়ম অনুযায়ী স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারেন। চলুন জেনে নেই কী কী উপায়ে ইউরোপের যাওয়া ও বসবাসের সুযোগ পাওয়া যায়।প্রধানত পাঁচটি উপায়ে আপনি ইউরোপে বসবাসের সুযোগ পেতে পারেন। প্রথমত- হাইলি কোয়ালিফাইড ওয়ার্কার বা উচ্চ যোগ্যতা সম্পন্ন কর্মী হিসেবে। প্রফেশনাল, গবেষক, ছাত্র, ভলেন্টিয়ার বা অবৈতনিক কর্মী হিসেবে এ সুযোগ পাওয়া যাবে। এছাড়া টুরিস্ট ভিসায় ভ্রমণ করতে এসে যদি কেউ পর্তুগাল, স্পেন এবং ইতালিতে চাকরি খুঁজে পান তাহলে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারবেন। 

এর

৩.ইউরোপ যাওয়ার উপায় | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপে যাওয়ার জন্য সিঙ্গাপুরে ইউরোপের বিভিন্ন দূতাবাস আছে। আপনি যেই কান্ট্রিতে যেতে চাচ্ছেন সেই দূতাবাসের মাধ্যমে যোগাযোগ করে ইউরোপের ভিসার ব্যবস্থা করতে পারবেন ।তবে প্রথম অবস্থায় ইউরোপের বড় বড় কান্ট্রিতে যেতে হলে আপনাকে যে সমস্ত রিকোয়ারমেন্ট গুলো প্রয়োজন তা সম্পূর্ণরূপে পূরণ করতে হবে।তাছাড়াও আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র  লাগবে। সেই সাথে ঐ সমস্ত দেশ গুলো কি কি কাজে লোক নিবে তা বিস্তারিত জেনে নিতে হবে।

তবে প্রাথমিক অবস্থায় আপনি যদি নরমাল কোন কাজের ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে আপনাকে সেনজেনভুক্ত কিছু কান্ট্রি রয়েছে সে সমস্ত কান্ট্রি গুলোতে প্রথম অবস্থায় প্রবেশ করতে হবে ।তাহলে আপনারা ইউরোপের অন্যান্য দেশে যেতে পারবেন।

সিঙ্গাপুর থেকে ইতালির ভিসা পাওয়া অনেক সহজ। প্রথম অবস্থায় যদি আপনি সিঙ্গাপুরে ইতালির ভিসা সংগ্রহ করতে পারেন তাহলে আপনারা ইউরোপের অন্যান্য কান্ট্রিতে অনায়াসে প্রবেশ করতে পারবেন। তাই আপনারা বুদ্ধি করে প্রথম অবস্থায় ইতালির ভিসা সংগ্রহ করুন এবং সেখানে থাকার পরে রেসিডেন্সি কার্ড সংগ্রহ করে আপনারা অন্যান্য শহরগুলো তে প্রবেশ করতে পারবেন।

৪. সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার ভিসা | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

প্রথম অবস্থায় আপনাকে আগে জানতে হবে যে আপনি সিঙ্গাপুর থেকে কোন ভিসার মাধ্যমে যাবেন। এখান থেকে অনেক ধরনের সুযোগ আছে। যেমন সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপে যাওয়ার জন্য স্টুডেন্ট ভিসার মাধ্যমে‌ যেতে পারবেন। অথবা আপনি প্রথম অবস্থায় যদি যেতে চান কম খরচের মধ্যে যেতে চান তাহলে আপনাকে টুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে যেতে হবে। এক্ষেত্রে খরচ অনেক কম পড়বে। সেই সাথে যদি আপনি ওয়ার্ক পারমিট ভিসা বা অন্যান্য ভিসা নিয়ে যেতে চান তাও যেতে পারবেন ।

তবে সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপের ভিসা ব্যবস্থার মধ্যে সিজনাল ভিসা রয়েছে এবং নন সিজিনাল রয়েছে। যেকোনো একটি ভিসা তে আপনারা সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপে যেতে পারবেন। তবে অবশ্যই যে সমস্ত সিজনাল ভিসা তে আপনারা যদি যেতে চান তাহলে খরচ কিছুটা কম পড়বে এবং যদি আপনারা নন সিজিনাল ভিসার মাধ্যমে যেতে চান তাহলে খরচ একটু বেশি পড়বে। তবে এটা জেনে রাখবেন নন সিজিনাল ভিসার ক্ষেত্রে কিন্তু টাকা বেশি লাগবে এবং দীর্ঘদিন যাবৎ থাকতে পারবেন সেখানে। তবে সিজিনাল ভিসার ক্ষেত্রে 6 মাস থেকে 1 বছর পর্যন্ত মেয়াদ হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে খরচ কম লাগবে পরবর্তীতে আপনাকে আবার রিনিউ করতে হবে ।আবার দেশে ফেরত আসা লাগতে পারে ।এইভাবে আপনারা ইউরোপের বিভিন্ন দেশগুলোতে যেতে পারবেন।

সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপে যাওয়ার জন্য আরেকটি মাধ্যম রয়েছে যেটি হল টুরিস্ট ভিসা নিয়ে আপনারা ইউরোপের দেশগুলোতে যেতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনাকে অধিক পরিমাণ ট্রানজেকশন দেখাতে হতে পারে। মানে আপনার একাউন্ট থেকে অধিক পরিমাণ টাকা ট্রানজেকশন করেছেন সেই বিষয়টি দূতাবাস কে দেখাতে হবে।আপনি যেই দূতাবাসের মাধ্যমে বিদেশে যেতে চাচ্ছেন সেই দেশের দূতাবাসে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো দেখিয়ে আপনাকে আবেদন করতে হবে।এই ভাবে যদি আপনারা অন্যান্য দেশে টুরিস্ট ভিসা নিয়ে যেতে পারেন তাহলে সেখানে কাজের ব্যবস্থা করে নিতে পারলে তখন আপনারা সেদেশের রেসিডেন্সি কার্ড পেয়ে যাবেন ।অথবা সেখানে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেয়ে যাবেন ।এইভাবে আপনারা ইউরোপের দেশগুলোতে থাকার ব্যবস্থা করতে পারবেন।


৫.ইউরোপে কাজের ভিসা | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ গুলোতে কাজের ভিসা পাওয়া সম্ভব। তবে এক্ষেত্রে আপনাদেরকে একটু বেশি খরচ করা লাগতে পারে ।যেমন সিঙ্গাপুর থেকে ইতালি ভিসা পাবেন, ইউরোপ, রোমানিয়া, পোল্যান্ড বিভিন্ন দেশের ভিসা আপনারা পাবেন। তবে এক্ষেত্রে আমরা যে সমস্ত দেশগুলোর কথা উল্লেখ করেছে এই সমস্ত দেশগুলোতে ভিসা পাওয়া সহজ।

নিউজিল্যান্ড ,অস্ট্রেলিয়া সহ অন্যান্য যেতে চান তাহলে কিন্তু আপনাদের খরচ বহন করা লাগবে। তাছাড়া তাদের অনেক রিকোয়ারমেন্ট আছে ।এ সমস্ত রিকোয়ারমেন্ট পূরণ করতে গেলে আপনাকে অনেক সময় দেওয়া লাগবে এবং অনেক লং প্রসেস হয়ে যাবে।

তবে নরমালি যদি আপনার কাজের ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে
আমরা উপরোক্ত যে দেশগুলোর কথা বলেছি এই সমস্ত দেশগুলোতে আপনারা অনায়াসেই কাজের ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে খরচ কত পড়বে এটাই কিন্তু এখন মূল বিষয়। নরমালি এখন বাংলাদেশ থেকেও কিন্তু ইউরোপের বিভিন্ন দেশের কাজের ভিসা পাওয়া যাচ্ছে ।যেমন ইতালি ,ফ্রান্স সহ অন্যান্য দেশের ভিসা আপনারা পাবেন।

৬.ভিসা পাওয়ার উপায় | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার জন্য অনেক বেসরকারি রিক্রুটিং এজেন্সি রয়েছে ।এসব রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে আপনারা যেতে পারবেন। তবে অবশ্যই জেনে রাখবেন যে সিঙ্গাপুর সরকার কর্তৃক অনুমোদিত কিনা। এবং তাদের লাইসেন্স নাম্বার সহ রেজিস্ট্রেশন নাম্বার এবং আনুষঙ্গিক অন্যান্য সার্টিফিকেট দেখে তারপরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে এক্ষেত্রে অনেক এজেন্সি রয়েছে যারা কাজ নিয়ে সরাসরি ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাঠিয়ে থাকে।

এসব এজেন্সির মাধ্যমে আপনারা স্টুডেন্ট ভিসার সহ বিভিন্ন চিকিৎসার জন্য ভিসা পাবেন ।তবে এক্ষেত্রে আপনাদের স্পেসিফিকভাবে করতে কত টাকা খরচ হবে তা আমরা জানাতে পারবো না ।এক্ষেত্রে বিভিন্ন সময়ে ভিসার দাম এবং খরচ পাতি সহ আলাদা বৃদ্ধি পেয়ে থাকে। তাই এটি একবারে উপযুক্তভাবে আজকে আমরা তুলে ধরতে পারলাম না ।

৭.প্রয়োজনীয় কাগজপত্র | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

  • 6 মাস মেয়াদি পাসপোর্ট
  • এনআইডি কার্ডের ফটোকপি
  • ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর ফটোকপি
  • কাজের দক্ষতার একটি সার্টিফিকেট
  • পূর্বে কাজ করার কোনো অভিজ্ঞতা
  • অফার লেটার
  • সিভি
  • বাংলাদেশের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স
  • সিঙ্গাপুরের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স 

৮.নাগরিকত্ব প্রাপ্তি সুবিধা | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

ইউরোপের কিছু রাষ্ট্রে নাগরিকত্ব পাওয়া যায়। ফ্রান্স,ইতালি, জার্মানি, স্পেন, পর্তুগাল ও যুক্তরাজ্য এই ৬ টি দেশে সহজে নাগরিকত্ব পাওয়া যায়। এছাড়াও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সকল দেশই ক্ষেত্র বিশেষ নাগরিকত্ব প্রদান করে। ইউরোপের বাহিরে আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, পেরু, ভেনিজুয়েলা, পানামা সহ কতিপয় রাষ্ট্র নাগরিকত্ব প্রদানে উদারতা দেখায়। 

ইউরোপের দেশগুলোতে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করা যায়। এ পদ্ধতিতে অল্প সময়ে নাগরিকত্ব লাভ করা যায়। অনুমোদন সূত্রে দীর্ঘদিন বসবাস করলে বা সে রাষ্ট্রে কোন সন্তান জন্মগ্রহণ করলে নাগরিকত্ব লাভ করা যায়। যেমন পর্তুগালে ৫ বছর বসবাস করলে নাগরিকত্ব প্রদান করে।সুতরাং ইউরোপের দেশগুলোতে গমনের আগে এই সব বিষয়ে জেনে-বুঝে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিৎ। এছাড়াও গন্তব্যে একজন ভালো সাহায্যকারী নির্ধারণ করে যাওয়া ভালো। তাতে বিপদে পড়ার আশঙ্কা কম থাকে।

১০. লেখকের মন্তব্য | সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায়

প্রিয় পাঠক, আজকে আমরা আলোচনা করলাম সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় নিয়ে। সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় সম্পর্কে আপনাদের যেকোনো মতামত আমাদের কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।আপনাদের মতামত আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সিঙ্গাপুর থেকে ইউরোপ যাওয়ার উপায় সম্পর্কে যদি কোন রকম প্রশ্ন থাকে সেটিও আমাদেরকে জানাবেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল সংগঠন The DU Speech এর পাশেই থাকবেন। যেকোনো বিষয়ে জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

আর্টিকেলটি লিখেছেন: নুসরাত জাহান হিভা 
পড়াশোনা করছেন: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় 
লেখকের জেলার নাম: কুমিল্লা



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর্টিকেল রাইটিং সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা
মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন
পড়াশোনা করছেন:  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। 
জেলা: নাটোর

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?