The DU Speech https://www.duspeech.com/2022/08/koti-taka-incomer-upay.html

কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়

আমরা সবাই চাই কোটি টাকা আয় করতে কিন্তু কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায় কি?আমরা সবারই ইচ্ছা ভালো পরিমাণ টাকা আয় করে আমরা আমাদের জীবনকে আরো সুন্দর ও সহজ করে তুলবো।কোটি টাকা আয়ের উপায় জানার জন্য অনুচ্ছেদটি পুরোটি পড়ুন এবং সৎ ভাবে বিশ্বস্ত উপায়ে কোটি টাকা আয় করুন।


অনুচ্ছেদ সূচী(যে বিষয়টি জানতে চান তার উপরে ক্লিক করুন)

  1. অফলাইনে টাকা আয়ের উপায়
  2. সিজনাল ব্যবসা করে টাকা আয়ের উপায়
  3. বিভিন্ন জিনিস পত্র বিক্রি করে টাকা আয় করুন
  4. স্টক এক্সচেঞ্জ এর মাধ্যমে টাকা আয় করুন
  5. ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয় করুন
  6. ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় 
  7. বাংলা ব্লগিং করে আয় করুন
  8. বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করুন
  9. গুগল এডসেন্স থেকে আয় করার উপায়
  10. এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আয়ের উপায় 
  11. স্পন্সরশিপ এর মধ্যমে আয়ের উপায় 
  12. মিডিয়া ভিত্তিক কাজ করে আয়ের উপায়
  13. সার্ভিসের বিনিময়ে আয় করুন
  14. অনুচ্ছেদ সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন ও উত্তর 
  15. লেখকের মন্তব্য
১.অফলাইনে টাকা আয়ের উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
অফলাইনেও বিভিন্ন মাধ্যমে কোটি টাকা আয় করা যায়।বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা যেমনঃখামার করে,বিভিন্ন ফল ও সবজির বাগান করে,রেস্টুরেন্ট বিজনেস,জামা কাপড় বিক্রি করেও বিশ্বস্ত ভাবে কোটি টাকা আয় করা যায় 
বর্তমানে আমাদের দেশে এমন অনেক নামকরা ব্যবসায়ী আছেন যারা অল্প পুঁজি দিয়ে বিভিন্ন ব্যবসা শুরু করে এখন কোটিপতি এবং দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়াচ্ছেন।
অফলাইন এ টাকা আয় করতে আপনার প্রয়োজন পুঁজি বা মূলধন। 
মূলধন ছাড়া আপনি ব্যবসা করতে পারবেন না তাই অবশ্যই আপনাকে আগে ভাবতে হবে আপনি কি ধরনের এবং কোন জিনিসের ব্যবসা করতে চান এরপরেই আপনি আপনার মূলধন খাটাবেন। 
মূলধন ব্যয় করার পরে আপনাকে ভাবতে হবে কিভাবে আপনি আপনার প্রোডাক্ট বিক্রি করবেন সেটার জন্য আপনাকে প্রচার করতে হবে এবং কাস্টমার হেন্ডেল করতা জানতে হবে তবেই আপনি আপনি আপনার প্রোডাক্টটি ভালো দামে সেল করতে পারবেন।
২.সিজনাল ব্যবসা করে টাকা আয়ের উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
সিজনাল ব্যবসা করাও কোটি টাকা আয়ের একটি বিশ্বস্ত উপায়।যেমন- আপনি মৌসুমী ফল বিক্রি করতে পারেন এতে আপনি চাইলে আপনার নিজের জমিতেও ফলের বা সবজির ফলন করতে পারেন অথবা যেখানে কম দামে ভালো ফল পাওয়া যায় সেখান থেকে কিনে এনেও আপনি যেখানে চাহিদা ভালো হবে সেখানে বিক্রি করতে পারবেন।
সিজনাল ব্যবসা করে কোটি টাকা আয়ের অনেক উদাহরণ আছে।যেমন এই ২০২২ এর রমজানেই একটি খবর বেড়িয়ে ছিলো যে একজন স্ট্রিট ফুড ব্যবসায়ী রমজানে পেঁয়াজু বিক্রি করে কোটি টাকা আয় করেছেন।
সেই ব্যবসায়ী কিন্তু সিজনাল ব্যবসা করেছেন।
অতএব আপনাকে বুঝতে হবে এবং পরিকল্পনা করতে হবে যে কোন সিজনের কোন জিনিসের ডিমান্ড ভালো থাকবে। এবং সেই জিনিস নিয়েই আপনাকে ব্যবসা করতে হবে।
৩.বিভিন্ন জিনিসপত্র বিক্রি করে আয় করুন|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
বিভিন্ন জিনিস পত্র বিক্রি করাও কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়ের একটি উপায়।আপনার যদি ভালো পরিমাণ পুঁজি থাকে তাহলে আপনি একটি দোকান ভাড়া নিয়ে বিভিন্ন ধরনের জিনিস যেমনঃ কাপড়, ক্রোকারিজ, কাঠের ফার্নিচার,পরিবহন ব্যবসা ইত্যাদি করতে পারেন এতে আপনাকে সৎ ভাবে লেগে থাকতে হবে।
বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করে কোটি টাকা আয় করা সম্ভব।এতে আপনাকে প্রচুর পরিশ্রম করতে হবে এবং যথেষ্ট সময় দিতে হবে তবেই আপনি কোটি টাকা আয় করতে পারবেন।
৪.স্টক এক্সচেঞ্জ এর মাধ্যমে টাকা আয়ের উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
স্টক এক্সচেঞ্জ এর ব্যাপারটি হলো আপনাকে একটি নির্দিষ্ট ব্যাংকে স্টক কিনতে হবে টাকা দিয়ে।প্রতিদিন এই স্টকের দাম ব্যাংক ভিত্তিক উঠা নামা করে তাই আপনাকে সব সময় খবরা খবর রাখতে হবে কখন আপনার স্টকের দাম বাড়তি থাকবে। 
সময় ও সুযোগ বুঝে আপনাকে আপনার স্টক সেল করে দিতে হবে এতে আপনি আপনার ভাগ্য অনুযায়ী লাখ থেকে কোটি টাকা পর্যন্ত লাভ করতে পারবেন
৫.ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করার উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়

ফ্রিল্যান্সিং জগতে সবচেয়ে বেশি যে জিনিসটির প্রয়োজন তা হলো আপনি কোনো একটি বিষয়ে নিজেকে পারদর্শী করে তুলতে হবে। কেননা ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে যে হাজার হাজার কাজ রয়েছে তার সবগুলো একসাথেই শেখা সম্ভব নয়। আর আপনি একইসাথে একাধিক কাজে মনোনিবেশ করতে পারবেন না।
আপনি যে বিষয়ে দক্ষ আপনাকে সেই বিষয় ভিত্তিক কাজ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে গিয়ে খুঁজে বের করতে হবে এবং কাজের জন্য আপনি মনোনীত হলে আপনাকে দক্ষতার সাথে কাজটি করতে হবে।
ফ্রিল্যান্সিং করে কোটি টাকা আয় করা এখন সম্ভব।বাংলাদেশের যুবকদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং এখন আশির্বাদ স্বরুপ।প্রতি বছর হাজার হাজার যুবক এই ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে আয় করে বেকারত্ব সমস্যা কমিয়ে আনছে তাই আপনিও পারেন ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে কোটি টাকা আয় করতে।
৬.ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায়|কোটি টাকা আয় করার বিশ্বস্ত উপায়
বর্তমানে ইউটিউব থেকে অনেকেই আয় করছেন শুধুমাত্র কন্টেন্ট ভিডিও বানিয়ে।আপনিও চাইলে কোটি টাকা আয়ের উপায় হিসেবে এই ইউটিউব কে বেছে নিতে পারেন।
আপনি একটি ইউটিউব একাউন্ট খুলবেন এবং এরপরে আপনাকে ভাবতে হবে আপনি কিরকম ব্লগ ভিডিও বানাবেন?আপনার ডেইলি লাইফস্টাইল নিয়ে নাকি রান্না নিয়ে নাকি খেলাধুলা বিষয়ক নাকি পড়াশুনা বিষয়ক এগুলো ছাড়াও আরো অনেক বিষয় নিয়ে আপনি ব্লগ বানাতে পারবেন।
আপনার ভিডিও ভিউয়ার যতো বেশি হবে আপনার সাবস্ক্রাইবার তত বাড়বে।এবং ইউটিউব থেকে আপনি তত বেশি ইনকাম করতে পারবেন।ভিউয়ার বাড়াতে হবে আপনাকে মানসম্মত ও কোয়ালিটিফুল ভিডিও বানাতে জানতে হবে।

৭.বাংলা ব্লগিং করে আয় করুন|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
ব্লগিং করে আয় করাও কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়। এতে আপনার যা প্রয়োজন তা হলো একটি বাংলা ওয়েবসাইট যেখান থেকে আপনি আপনার বাংলা কন্টেন্ট গুলো লিখতে পারবেন আপনার ভিউয়ার যত বেশি হবে আপনার টাকা আয়ের পরিমাণ তত বাড়বে। এছাড়াও অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলো তে রাইটার হিসেবেও আপনি কাজ করতে পারবেন লেখালেখি করতে পারবেন।
আপনার টাকা আয়ের পরিমাণ নির্ভর করবে আপনার ভিউয়ার এর উপরে এবং আপনার ভালো কন্টেন্ট রাইটিং এর উপরে। আপনার রাইটিং ভালো করার জন্য এই বিষয় গুলো অনুসরণ করুন-
  • যে বিষয়ে লিখবেন সে বিষয়টির উপরে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে
  • সে বিষয়ে পর্যাপ্ত তথ্য সংগ্রহ করতে হবে
  • প্রয়োজনে আর্টিকেল এর বিষয়টি সম্পর্কে পড়াশোনা করতে হবে
  • লেখার সময় বানান এর দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে বানান শুদ্ধ থাকে
  • শুদ্ধ বাংলা চলিত ভাষায় লিখতে হবে
  • সুন্দর করে সাজিয়ে গুছিয়ে আর্টিকেল উপস্থাপন করতে হবে
  • ভিজিটরদেরকে উদ্দেশ্য করে আর্টিকেল লিখতে হবে
  • নির্ভুল এবং সঠিক  তথ্য দিতে হবে


৮.বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করুন|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
আপনার নিজের যদি বাংলা ওয়েবসাইট থাকে, সেই বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আপনি সহজেই আয় করতে পারবেন গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে।আপনি চাইলে নিজের একটি বাংলা ওয়েবসাইট বানাতে পারেন।বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করার এখন জনপ্রিয় ও সহজ মাধ্যম হলো এই গুগল এডসেন্স।
এছাড়াও এফিলিয়েট মার্কেটিং করেও আয় করতে পারবেন এতে আপনার নিজের একটি ওয়েবসাইট প্রয়োজন হবে।এছাড়াও যদি আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর সংখ্যা ভালো থাকে তাহলে আপনি ব্যানার বিজ্ঞাপন বিক্রি করেও আয় করতে পারবেন।
আবার স্পন্সার বিজ্ঞাপনের মাধ্যমেও এখন বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করা সম্ভব।এমনকি বিভিন্ন পণ্য বিক্রয় করেও আপনার ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে পারবেন। তবে এর জন্য কিছু বিষয় গুরুত্বপূর্ণ সেগুলো হলঃ
  • গুগল এডসেন্স একাউন্ট থাকতে হবে
  • ভালো মানের কন্টেন্ট বা আর্টিকেল লিখতে হবে
  • ওয়েবসাইটে ভিজিটর থাকতে হবে
  • নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর আর্টিকেল থাকতে হবে
  • সময় নিয়ে কাজ করার ধৈর্য থাকতে হবে

৯.গুগল এডসেন্স থেকে আয় করার উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত মাধ্যম কি?আয় করার অনেক মাধ্যম আছে কিন্তু সহজ মাধ্যম কি?বর্তমানে গুগল এডসেন্স এ সবচেয়ে সহজে আয় করা সম্ভব এর জন্য আপনার গুগুল এডসেন্স একাউন্ট থাকতে হবে।যে বিষয় গুলো অবশ্যই লাগবে সেগুলো হলঃ 
  • গুগল এডসেন্স ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইট বানাতে হবে
  • অন্য কোথাও প্রকাশ হয়েছে এমন আর্টিকেল বা টপিক হুবুহু নিজের ওয়েবসাইটে রাখা যাবে না। প্রত্যেকটি আর্টিকেল ইউনিক হতে হবে।
  • ওওয়েবসাইটে প্রকাশিত ছবি গুলো অবশ্যই ক্রিয়েটিভ লাইসেন্স যুক্ত হতে হবে অথবা নিজের তোলা বা নিজের এডিট করা হতে হবে যাতে অন্য কেউ সেই ছবির মালিকানা দাবি করতে না পারে
  • আপনার ওয়েবসাইটে কমপক্ষে ২০-৩০ টি আর্টিকেল থাকতে হবে।
গুগল এডসেন্স এর এপ্রুভাল পেলেই টাকা আয় করা যাবে না আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর ও থাকতে হবে।
সেজন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে হবে।এতে করে যখন কোনো ভিজিটর কোনো টপিক সার্চ দিবে সেই টপিক যদি আপনার ওয়েবসাইটে থাকে তাহলে আর্টিকেলটি ভিজিটরের সামনে আসবে।ভিজিটর বেশি হলে আয় করা সহজ হবে।কারণ গুগল এডসেন্স এর কাজ বেশি হবে তখন।এটি বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করার উপায় এর মধ্যে অন্যতম একটি উপায়
১০.এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আয় করার উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্থ উপায়
কোটি টাকা আয়ের আরেকটি উপায় হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং।আপনি একটি প্রোডাক্ট সম্পর্কে অনেক ভালো জানেন এবং জ্ঞান রাখেন। আপনি যদি সেই প্রোডাক্ট নিয়ে আপনার ওয়েবসাইটে লেখালেখি করে জানান এবং লেখা শেষে প্রোডাক্টটি কোথায় পাওয়া যাবে তার একটি লিংকদিয়ে দিলেন।
এরপর ভিজিটর রা যদি আপনার লেখা আর্টিকেলটি পড়ে উক্ত জায়গা থেকে প্রোডাক্টটি কিনে তাহলে সেই প্রোডাক্টের দামের ৩% আপনি কমিশন হিসেবে পাবেন এটাই হলো এফিলিয়েট মার্কেটিং।আপনার কাজের উপর ডিপেন্ড করে আপনি আপনার ইনকাম বাড়াতে পারবেন।
১১.স্পন্সরশিপের মাধ্যমে আয়ের উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
কোটি টাকা আয়ের আরেকটি বিশ্বস্ত উপায় হলো স্পন্সরশিপ এর মাধ্যমে আয়।স্পন্সরশিপ এর মাধ্যমে টাকা আয়ের উপায় হলো, আপনি আপনার ওয়েবসাইটে বিভিন্ন রকমের আর্টিকেল বা কন্টেন্ট লিখবেন সেই কন্টেন্ট এর মধ্য থেকে কিছু কিছু কন্টেন্ট বা সব গুলোতেই আপনি কোনো প্রতিষ্ঠান বা কোনো ব্র‍্যান্ডের নাম উল্লেখ করবেন এর বিনিময়ে আপনি সেই ব্র‍্যান্ড বা প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির কাছ থেকে অর্থ । 
স্পন্সরশিপের একটি বড় উদাহরণ হলোঃরবি,রবি 10মিনিট স্কুলকে স্পন্সর করে ফলে 10 মিনিট স্কুল তাদের প্রতিষ্ঠান এর নামের আগে রবির নাম রাখে সবসময়।
এই স্পন্সরশিপ বড় বড় প্রতিষ্ঠান, মোবাইল কোম্পানি গুলো দিয়ে থাকে এতে করে যেমন তাদের প্রতিষ্ঠান এর প্রচার হয় তেমনি ওয়েবসাইট মালিকরাও তাদের ওয়েবসাইট থেকে আয় এর সুযোগ পান।
১২.মিডিয়া ভিত্তিক কাজ করে আয়ের উপায়|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায় হলো মিডিয়া ভিত্তিক কাজ করা ধরুন আপনি একটি নতুন শহরে গেলেন এবং আপনার একটি জব বা টিউশন প্রয়োজন কিন্তু আপনি কাউকেই চিনেন না যে আপনাকে একটি চাকরি বা টিউশনের ব্যবস্থা করে দিবে।
এই অবস্থায় আপনি বিশ্বস্হ মিডিয়ার হেল্প নিতে পারেন। মিডিয়া ভিত্তিক ওয়েবসাইট গুলোতে গিয়ে নিজের সিভি এবং পছন্দসই কাজের বিবরণ দিয়ে দিলে মিডিয়া আপনাকে আপনার পছন্দের কাজটি খুঁজে দিবে।বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করার উপায় জানতে সম্পূর্ণ লেখাটি পড়ুন। 
এবং এতে মিডিয়ার লাভ হলো আপনার কাজের বেতনের কিছু পারসেন্ট মিডিয়াকে দিতে হবে।
এটাই মিডিয়ার ইনকাম।আপনি এই মিডিয়া ভিত্তিক কাজ করতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটে।
এতে দরকার শুধু প্রচার যাখেন যাদের টিচার বা এমপ্লয়ি দরকার তারা আপনাকে টিচার বা এমপ্লয়ি খুঁজে দিতে বলবে এবং যাদের কাজ দরকার তাদের আপনি কাজ প্রোভাইড করবেন। এতে করে যাদেরকে আপনি কাজ দিবেন তাদের প্রথম বেতনের কিছু পারসেন্ট আপনি পাবেন।
মিডিয়া ভিত্তিক কাজ গুলোতে অল্প সময়েই অনেক টাকা আয় করা যায় বলে এখনকার সময়ে এটি খুব জনপ্রিয়। কিন্তু কিছু অসাধুরা এটি থেকে অসৎ ভাবে আয় করে তাদের থেকে দূরে থাকবেন এবং সৎ ভাবে আয়ের চেষ্টা করবেন।
১৩.সার্ভিস এর বিনিময়ে আয় করে আয় করুন?|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
ওয়েবসাইট এ শুধুমাত্র লেখালেখি করা যাবে এমন টা নয়।ধরুন আপনি কোনো বিষয়ে অনেক অভিজ্ঞ এবং দক্ষ এবং আপনি অন্যদেরও সেই বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতে ইচ্ছুক।
তাহলে আপনি আপনার  ওয়েবসাইটেই প্রশিক্ষণ দিতে পারবেন।আপনার প্রশিক্ষণ দেওয়ার ধরণ,বিষয় এবং কোয়ালিটি যদি মানসম্মত হয় তাহলে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর সংখ্যাও বাড়তে থাকবে এবং এর সাথে আপনার আয় ও বাড়বে।
এতে আপনাত যে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে তা হলো আপনার প্রশিক্ষণ দেয়ার কন্টেন্ট গুলো যাতে শুধু আপনার শিক্ষার্থীরাই দেখতে পারে সেই ব্যবস্থা করা

১৪.অনুচ্ছেদ সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন ও উত্তর|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
১.কোটি টাকা কি এক মাসে আয় করা সম্ভব?
=জ্বি,লটারিতে। 
২.অন্যের অধীনের কাজ না করে কিভাবে কোটি টাকা আয়ে করা যাবে?
=ব্যবসা বা ফ্রিল্যান্সিং করে।
৪.ওয়েবসাইট ভিত্তিক কাজ গুলো কি বিশ্বস্ত?
=আপনাকে কাজ করার আগে খবর নিতে হবে এবং ভালো মতো দেখে নিতে হবে যে, ওয়েবসাইটটি ট্রাস্টেবল কিনা।
৫.কত সময় লাগবে কোটি টাকা আয় করতে?
=আপনার কাজের ধরন ও সময়ের উপর ডিপেন্ড করবে।১বছর ও লাগতে পারে ১০ বছর ও লাগতে পারে।
১৫.লেখকের মন্তব্য|কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায়
কোটি টাকা আয়ের বিশ্বস্ত উপায় বলতে আমরা বুঝি যেখানে কাজ করে আপনি বিনা চিন্তায় এবং না ঠকে আয় করতে পারবেন। 
এবং আমি মন করে কারো অধীনে কাজ না করে নিজের ব্যবসা দাঁড় করিয়ে আয় করার উৎস নিজে বানানোটা বেশি ভালো এতে আপনার ঠকে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে, হ্যাঁ লস হতে পারে কিন্তু আপনাকে মনে রাখতে হবে সবখানের লাভ লস থাকে।
আপনি যদি রিস্ক না নেন আপনি লাভ ও করতে পারবেন না। কিন্তু সবসময়মনে রাখতে হবে যে সৎ ভাবে কাজ করতে হবে এবং পরিশ্রম করে যেতে হবে ধৈর্য ধরতে হবে। 

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?