The DU Speech https://www.duspeech.com/2022/04/blog-post_22.html

৬০% বহিরাগত জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির ইফতার মাহফিলে

পবিত্র রমজানে এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদীয়মান কিছু টগবগে তরুণ। প্রায় ৬৪ জেলার প্রতিটি ইফতারে অংশগ্রহণ করে পুরো বাংলাদেশ ভ্রমণ করছে বলে জানা যায়। প্রত্যেক ইফতার মাহফিলে সশরীরে গিয়ে দেখা যায় অভিন্ন বেশ কয়েকজন তরুণ সামনের কাতারে ঐ জেলার চাদের হাটে গিয়ে মিশেছে। 


বিভিন্ন জেলা কল্যাণ সমিতির ইফতার মাহফিলে তাদের সরব উপস্থিতির জন্য কিছু উদ্যমী শিক্ষার্থীর কঠোর পরিশ্রমে 'বাংলাদেশ ইফতার হান্টিং' নামে সংগঠনের সূচনা শুরু হয়েছে। 'বাংলাদেশ ইফতার হান্টিং ' সংগঠনের উদ্দেশ্য সমস্ত জেলা কল্যাণ সমিতির ইফতার মাহফিলে অংশগ্রহণ করে ভাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি করা। 

প্রতিটি জেলাকে তারা নিজের জেলা এবং মাতৃভূমি মনে করে প্রাণবন্তভাবে অংশগ্রহণ করে থাকে। এমন ইতিবাচক মনোভাবের কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাতৃত্বের বন্ধন আরও দৃঢ় হচ্ছে। এসকল শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশের প্রতিটি অংশকে বা জেলাকে  হৃদয়ে ধারণ করার অনুশীলন করছেন। এতে করে পরবর্তী পর্যায়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর্মকর্তা হিসেবে যখন নিয়োগ পাবেন তখন প্রতিটি জেলাকে নিজের মাতৃভূমি মনে করে প্রাণবন্তভাবে সেবা করতে পারবেন।

সংগঠনের কিছু সদস্যের সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে তারা জানান, 'বাংলাদেশের দুর্নীতি দিনদিন বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এই জন-অসন্তোষ আমরা দূর করতে চাই। নিজের জেলাকে যদি আপনি মাতৃভূমি মনে করেন তখন অন্য কোন জেলাতে বিসিএস বা অন্যান্য চাকরির নিয়োগ পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়ার পর উক্ত জেলাকে নিজের মনে করতে অসুবিধা হচ্ছে, ফলে অনেকেই দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ছে। তাই আমাদের এই সংগঠনের উদ্দেশ্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা কে নিজের মাতৃভূমি মনে করে হৃদয়ে লালন করা। এতে করে দিন দিন বাংলাদেশের দুর্নীতি অনেকাংশে লাঘব হবে বলে আশা করছি।'

'The DU Speech' এর তদন্ত কমিটি জানিয়েছেন,  অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে যারা প্রেমিকার পিছনে টাকা ব্যয় করার ফলে ইফতারের টাকা হাতে থাকে না। এমতাবস্থায় তারা বিভিন্ন জেলা কল্যাণ সমিতির ইফতার মাহফিলে অংশগ্রহণ করে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছে। আবার কিছু শিক্ষার্থী আছেন যাদের প্রেমিকা নেই, তারা এই সকল জেলা কল্যাণ সমিতির ইফতার মাহফিলে অংশগ্রহণ করে প্রেমিকা খুঁজে সুখে-শান্তিতে দিন কাটাচ্ছেন।

বিভিন্ন জেলা কল্যাণ সমিতির ইফতার মাহফিলে সচারাচর যত সংখ্যক শিক্ষার্থী উপস্থিত থাকে বর্তমানে এই সংগঠনের পরিশ্রম এবং সফলতায় স্বাভাবিকের তুলনায় দ্বিগুণ শিক্ষার্থী উপস্থিত হচ্ছেন। ফলাফলে, উপস্থিত অতিথি এবং উপদেষ্টা জেলা কল্যাণ সমিতির ওপর আস্থা রাখছেন, খুশি হচ্ছেন এত সংখ্যক শিক্ষার্থীদের দেখে। 


পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?